হোম News Scroll ধর্ষণের পরে যত ‘অন্যরকম ধর্ষণ’

ধর্ষণের পরে যত ‘অন্যরকম ধর্ষণ’

73
0

নিউজ ডেস্ক : দেশে ধর্ষণের শিকার নারীর জীবনে ধর্ষণ কখনো শেষ হয় না৷ নানা প্রক্রিয়ার মধ্যে সে পরোক্ষ ধর্ষণেরই শিকার হতে থাকে৷ মামলা, তদন্ত, সাক্ষ্য গ্রহণ, বিচার প্রত্যেকটি পর্যায়েই যেন পরোক্ষ ‘ধর্ষণের শিকার হয়’ নারী৷

ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় শাস্তি পায় মাত্র শূন্য দশমিক তিন ভাগ অপরাধী৷ এই পরিস্থিতিতে ২০১৯ সালে ধর্ষণ বেড়েছে দ্বিগুণ৷ অন্যদিকে ধর্ষণের শিকার শতভাগ নারীকেই পরবর্তী জীবনে ভুক্তভোগী হয়েই বেঁচে থাকতে হয়৷ধর্ষণের শিকার নারী ও বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে গবেষণা করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফাতেমা সুলতানা শুভ্রা৷ তিনি ধর্ষণের বিচার ও তদন্ত প্রক্রিয়া নিয়ে দুটি উদাহরণ দেন৷

১. ভিকারুননিসা স্কুলের ছাত্রী ধর্ষণের বিচারের সময় অভিযুক্ত শিক্ষক পরিমল জয়ধরের পক্ষে ৬-৭ জন অ্যাডভোকেট ছিলেন৷ তারা আদালতে প্রচণ্ড হইচই করে মেয়েটির শারীরিক গঠন নিয়ে আদালতকে বলছিলেন৷ তার শরীরের বর্ণনা দিচ্ছিলেন৷ তারা প্রমাণের চেষ্টা করছিলেন পরিমলের যা শারীরিক গঠন তাতে ওই মেয়ের সম্মতি ছাড়া কিছু হয়নি৷

২. টাঙ্গাইলের এক নারী তার দেবরের হাতে ধর্ষণের শিকার হন৷ তার স্বামী প্রবাসী৷ ঘটনার সময়ও তিনি প্রবাসে ছিলেন৷ ধর্ষণের পর ওই নারীকে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টাও করা হয়৷ মামলা আদালতে ওঠার পর তার স্বামী তাকে তালাক দেন৷ আর আদালতে বলেন, তার স্ত্রী দুশ্চরিত্রা৷

ফাতেমা সুলতানা শুভ্রা বলেন, তদন্ত, বিচার প্রক্রিয়া এবং আইনের মধ্যেই অনেক উপাদান ও ফাঁক আছে যা ধর্ষণের শিকার নারীর জীবন দুর্বিসহ করে তোলে৷ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড৷ ১৬ বছরের বেশি বয়সি কোনো নারীর সম্পত্তি ছাড়া অথবা ভয়ভীতি, প্রতারণা বা প্রলোভন দেখিয়ে যৌন সহিংসতা করলেই তা ধর্ষণ৷ আর ১৬ বছরের নীচে হলে সম্মতিতে হলেও তা ধর্ষণ হিসেবে বিবেচিত হবে৷ ধর্ষণের পর যেকোনোভাবেই মৃত্যুর ঘটনা ঘটলে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড৷ এই আইনের তেমন কোনো সমালোচনা নেই৷ সমালোচনা আছে তদন্ত, সাক্ষ্য আইন ও বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে৷ সাক্ষ্য আইনের ১৫৫(৪) ধারায় ধর্ষণের শিকার নারীকে আদালতে ‘সতীত্বের’ পরীক্ষা দিতে হয় আর এর সুযোগ নেয় ধর্ষকের আইনজীবীরা৷

ফাতেমা সুলাতানা শুভ্রা জানান, ভিকটিমের শারীরিক আলামত সংগ্রহের নামে যে ডাক্তারি পরীক্ষা হয় তাও ভয়াবহ৷ আমি গবেষণা করতে গিয়ে দেখেছি ওয়ার্ড বয়দের মাধ্যমে এই পরীক্ষার সময় অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ আর এই পরীক্ষায় শরীরের অনেক স্পর্শকাতর অঙ্গের মাপ উল্লেখ করা হয়, যা ধর্ষকের পক্ষে যায়৷ যেমন স্তনের আকার যদি বড় হয় তাহলে নারীকে হ্যাবিচুয়েটেড প্রমাণের চেষ্টা চলে৷
তিনি বলেন,একটি উদাহরণ দেই৷ কোনো নারী যদি বৃহস্পতিবার রাতে থানায় রিপোর্ট করেন তাহলে তার পরীক্ষা হবে রোববার৷ ৪৮ ঘন্টা পার হওয়ার পর তো আর আলামত তেমন পাওয়া যায় না৷
মানবাধিকার কর্মী এবং মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী অ্যাডভোকেট এলিনা খানও ধর্ষণের শিকার নারীদের আইনি সহায়তা দিয়ে আসছেন দীর্ঘদিন ধরে৷ তিনি বলেন, আইন কঠোর থাকলেও সাক্ষ্য আইনে অনেক সমস্যা আছে৷ ট্রাইব্যুনালে ১৮০ দিনে বিচার শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বছরের পর বছর ঝুলে থাকে৷ এই দীর্ঘ সময় ধর্ষণের শিকার নারী বিচার চাইতে গিয়ে পদে পদে ধর্ষণের শিকার হন৷ তিনি যখন প্রথম থানায় অভিযোগ করেন তখনই তাকে সন্দেহের চোখে দেখা হয়৷ মামলা নেয়ার আগেই নানা প্রশ্নে তাকে বিপর্যস্ত করা হয়৷

তিনি বলেন, ভিকটিমের সাক্ষ্য গোপন কক্ষে নেয়ার বিধান থাকলেও তা কার্যকর নেই৷ আর এখন নারী ডাক্তার দিয়ে পরীক্ষার কথা বলা হলেও বাস্তবে সেটা সবখানে হচ্ছে না৷ তিনি জানান, বিচার না পাওয়ায় যেটা হয়, অপরাধী ধর্ষণের শিকার নারীর সামনেই ঘুরে বেড়ায়৷ এটা শুধু তার জীবনকেই দুর্বিষহ করে না, তার পরিবারের সদস্যদেরও বিপর্যস্ত করে৷ সে গৃহবন্দি হয়ে পড়ে অথবা এলাকা ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়৷ বিচার না হওয়ায় আরো একটি সংকট হয়, ওই নারীকে মিথ্যাবাদী অ্যাখ্যা দেয়া হয়৷ তাকে অসৎ চরিত্রের তকমা দেয়া হয়৷

আর মনোচিকিৎসক ডা. মেঘলা সরকার বলেন, ধর্ষণ একজন নারীর জীবনে ইনজাস্টিস (অবিচার)৷ বিচার না পাওয়া আরো একটা ইনজাস্টিস৷ তাই এরজন্য ভিকটিমকেই ট্রমা থেকে বেরিয়ে এসে স্বাভাবিক জীবন যাপনের শক্তি অর্জন করতে হবে৷ সামাজিক বা পারিপার্শ্বিক সহায়তা থাকলে এটা তার জন্য সহজ হবে৷ কিন্তু মূল শক্তি ভিকটিমের মানসিক শক্তি৷

রিপ্লাই করুণ

Please enter your comment!
Please enter your name here